প্রচ্ছদ আন্তর্জাতিক চীনের বিরুদ্ধে পশ্চিমে ক্ষোভ বাড়ছে, চীনা রাষ্ট্রদূতকে তলব

চীনের বিরুদ্ধে পশ্চিমে ক্ষোভ বাড়ছে, চীনা রাষ্ট্রদূতকে তলব

140
0

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ করোনাভাইরাসের প্রকোপ চীন যেভাবে মোকাবেলা করেছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। ফিনানসিয়াল টাইমস পত্রিকায় দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন চীন এই সঙ্কট অন্যদের থেকে ভালভাবে মোকাবেলা করেছে এটা বলা “অজ্ঞতা” হবে। তিনি বলেছেন, “কী ঘটেছে তা আমরা আসলে জানি না।”

চীন থেকে এই ভাইরাস ছড়ালেও চীনের চেয়েও বেশি মানুষ মারা গেছে আমেরিকা ও ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে। চীনে মৃতের সংখ্যা নিয়ে এবং চীন কত দ্রুত তা মোকাবেলা করেছে বা অন্য দেশগুলোকে কত দ্রুত এই ভাইরাস সম্পর্কে সতর্ক করেছে সন্দেহ প্রকাশ করেছে আমেরিকা এবং ব্রিটেনও।

বিশ্ব ব্যাপী এই ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে বিশ লাখের বেশি মানুষের এবং মারা গেছে ১ লক্ষ ৪৫ হাজার। সবেচয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে আমেরিকা, ফ্রান্স, ইতালি ও স্পেনের জনগণ। তবে চীনের পদক্ষেপের প্রশংসা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

চীন ও ফ্রান্সের মধ্যে কেন এই সংঘাত?

ফ্রান্সে কোভিড নাইনটিন আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৪১ হাজার এবং মৃতের সংখ্যা ১৮ হাজার।উহান শহরে শুক্রবার আরও ১,২৯০ জনের মৃত্যুর খবর দেয়া হয়েছে। ফলে চীনে এখন মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ৪,৬৩২ জন। উহানেই এই মহামারির শুরু এবং অতি সম্প্রতি সেখানে জারি করা কঠোর লকডাউন তুলে নেয়া হয়েছে।

স্থানীয় কর্মকর্তারা বলেছেন তাদের পরিসংখ্যান আসতে সময় লেগেছে এবং আগের পরিসংখ্যান সঠিক ছিল না। মৃতের সংখ্যা গোপন করার অভিযোগ অস্বীকার করেছে চীন। প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর ক্ষোভের কারণ এই ভাইরাস মোকাবেলায় পশ্চিমা সরকারগুলোর ভূমিকা নিয়ে চীনের এক নিবন্ধ।

চীনা দূতাবাসের ওয়েবসাইটে এক নিবন্ধে লেখা হয়েছে পশ্চিমের দেশগুলো বৃদ্ধ মানুষদের দেখাশোনার জন্য যে আবাসনগুলো রয়েছে সেখানে বয়স্কদের মৃত্যুর মুখে ফেলে রেখে দিচ্ছে – তাদের সেখানেই মরতে দিচ্ছে। ফ্রান্সে এইসব বৃদ্ধ নিবাস বা কেয়ার হোমে কোভিড নাইনটিনে যারা মারা গেছেন তাদের সংখ্যা বিশাল। দেশটিতে মোট মৃতের এক তৃতীয়াংশই কেয়ার হোমের বৃদ্ধ বাসিন্দা।

চীন অবশ্য এই বিতর্ককে “ভুল বোঝাবুঝি” বলে নাকচ করে দিয়েছে। সরকারি মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেছেন ফ্রান্স কীভাবে এই মহামারির মোকাবেলা করছে সে বিষয়ে চীন কখনই কোন নেতিবাচক মন্তব্য করেনি।

মি. ম্যাক্রোঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল চীন ভাইরাস ঠেকাতে যে কঠোর কর্তৃত্বমূলক পদক্ষেপ নিয়েছিল তা পশ্চিমা দেশগুলোর গণতন্ত্রের দুর্বলতাকে সামনে এনে দিয়েছে কিনা। উত্তরে তিনি বলেছেন মুক্ত সমাজ ব্যবস্থা আর যে সমাজ ব্যবস্থায় সত্য চাপা দেয়া হয় -এ দুয়ের মধ্যে তুলনা চলে না।

ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডমিনিক রাব বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন এই প্রাদুর্ভাব কীভাবে শুরু হল এবং “কেন তা আরও আগে থামানো গেল না” তা নিয়ে চীনকে “কঠিন প্রশ্নের” মুখোমুখি করতে হবে।

তিনি বলেছেন চীন থেকে এই ভাইরাস কীভাবে বাইরে এভাবে ছড়ালো তা “গভীরভাবে অনুসন্ধান” করতে হবে এবং এই সঙ্কটের পর “সব লেনদেন আগের মতই” চালানো যাবে না। ডোনাল্ড ট্রাম্পও চীনের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য যুক্ত করুন
আপনার নাম লিখুন