প্রচ্ছদ অন্যান্য “উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প” পর্ব – ১

“উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প” পর্ব – ১

295
0

টাঙ্গাইলের মেয়ে রিফাত আরা বৃষ্টি, ইডেন মহিলা কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগ হতে স্নাতক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগ হতে শিল্প-সাংগঠনিক মনোবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তিনি “রীতি – Riti” নামক একটি অনলাইন ভিত্তিক বিজনেস প্লাটফর্মের স্বত্বাধিকারী। তিনি তার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প পাঠিয়েছেন আমাদের।

বৃষ্টি বলেন, আমার বিজনেসের অনুপ্রেরনা আমার “মা”। ছোট্ট থেকে মায়ের সংগ্রাম দেখেছি আর মা দ্বারা শিখেছি স্বাবলম্বী হতে হবে, কখনও কারো ওপর নির্ভর করে জীবন চালালে চলবে না। তাই বিজনেসের প্রথম উৎসাহ পেয়েছি মায়ের কাছ থেকে আর বিয়ের পর আমার লাইফ পার্টনার থেকে।

আমার শুরুটা ছিল ২০১৮ সালে বিদেশি পণ্য নিয়ে, আলহামদুলিল্লাহ সব ভালোই চলছিলো। ২০১৮ এর শেষ দিকে আমার অনার্সের ৪র্থ বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হয় এরপর পরীক্ষা শেষে ২০১৯ সালে আমার বিয়ে তার সাথে আমার মাস্টার্সের শুরু। সব কিছু এতো দ্রুত চলছিল সারাটা সময় দৌড়ের ওপর থাকতাম, বিজনেস আর শুরু করা হলো না।

২০২০ সালে মনস্থির করি, আমি আবার কামব্যাক করবো কারন একটাই, আমি সবসময় নিজেকে একজন উদ্যোক্তা হিসেবেই দেখতে চেয়েছি। এই দেড় বছরে আমার বিশাল বিজনেস গ্রুপ ধ্বংস নেমে যায়। আর এই দিকে করোনা পরিস্থিতিও দেখা দেয়। সবদিকে অন্ধকার আমার, বুঝতে পারি না কি করে সব আবার শুরু করবো।

উদ্যোক্তা হতে হলে সবার আগে চ্যালেঞ্জ নিতে হবে আর সাথে তিনটি গুন থাকতে হবে- সততা, পরিশ্রমী আর ধৈর্যশীল। তাই আমি চিন্তা করি আমি আবার শুন্য থেকে শুরু করবো, তবে এবার নতুন পরিকল্পনা আর নতুন কিছু নিয়ে। এই নিয়ে আমি সময় নিয়ে ভেবে আর সবকিছু গুছিয়ে নিয়ে তারপর আমার পেজ “রীতি-Riti” নিয়ে পথ চলা শুরু করি।

“রীতি”র মূল লক্ষ্য হলো দেশি পণ্য। আমি আমার অঞ্চলের নামকরা প্যাড়া মিষ্টি ও চমচম দিয়ে শুরু করলাম। সকলের ব্যাপক সাড়া মিললো। এরপর আস্তে আস্তে কালোজাম, খাঁটি ঘি, সরিষার তেল আর মধু যুক্ত করলাম। পাশাপাশি কিছু শাড়ী ও ব্যাগও রাখলাম।

আলহামদুলিল্লাহ আমার রীতি কয়েক মাসে কয়েক শত মানুষকে পণ্য ডেলিভার করেছে আর সকলের ভালোবাসা নিজ ঝুলিতে সংরক্ষণ করেছে। আসলে ভেজালের বাজারে যখন মানুষ দেশীয় ঐতিহ্যবাহী ও খাঁটি খাবার ঘরে বসে পাচ্ছে তখন আস্থা আপনা আপনিই চলে আসে।

আমার স্বপ্ন একদিন বিভিন্ন অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী খাবার বা পণ্যগুলো পাবে রীতিতে আঙিনায়, ঐদিনের জন্য আমি অনবরত কাজ করে যাচ্ছি।

দিন শেষে আপনাকে কি শান্তি দিবে জানেন? কত মানুষের মন জয় করতে পারলাম, যখন ক্লাইন্টদের রিভিউগুলো পাই সত্যি আমার সকল পরিশ্রম কিছুই মনে হয় না আর এখানেই উদ্যোক্তার সার্থকতা।

সকলে আমার আর আমার “রীতি – Riti” জন্য দোয়া করবেন। আপনার সন্তুষ্টিতে আমাদের পথ চলা।

রিফাত আরা বৃষ্টি
স্বত্বাধিকারী,
রীতি – Riti

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য যুক্ত করুন
আপনার নাম লিখুন