প্রচ্ছদ দেশজুড়ে ঢাকা বিভাগ ৪০ মণের ‘মানিকগঞ্জের সাহেবের ‘ দাম হাঁকিয়েছে ৩০ লাখ টাকা

৪০ মণের ‘মানিকগঞ্জের সাহেবের ‘ দাম হাঁকিয়েছে ৩০ লাখ টাকা

12
0

মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় এবারের অনলাইন কোরবানির পশুর হাটে ভাইরাল ৪০ মণের ‘সাহেব’ নামের একটি ষাঁড়। চার বছর বয়সী ফ্রিজিয়ান জাতের এ ষাঁড় গরুটির দাম হাঁকানো হচ্ছে ৩০ লাখ টাকা।

সাটুরিয়া উপজেলার হরগজ নয়া পাড়া গ্রামের নোমাজ আলী নিজ বাড়িতে চার বছর ধরে ষাঁড়টি লালন-পালন করছেন। গরুটিকে একনজর দেখার জন্য মানুষের ভিড়ে নোমাজ আলীর বাড়িতে এক উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

‘সাহেব’ কে প্রতিদিনই সাধারণ গো খাদ্যের পাশাপাশি কলা, মালটা, মিষ্টি কুমড়া পেয়ারাসহ বিভিন্ন ফল খাওয়ানো হয়। শরীর পরিষ্কারের জন্য নামী-দামী ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু দিয়ে দিনে কয়েকবার গোসল করানো হয়। শরীরকে ঠাণ্ডা রাখার জন্য ৩টি ফ্যান সবসময় চালু রাখা হয়। আয়েশি খাবার খাওয়া আর চলন বলনের ভাব দেখে সখ করে ওর নাম রেখেছি ‘সাহেব’।

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার লালনকৃত পশু ৮-১০ বছর ধরেই গরুর হাটে ভাইরাল হয়ে আসছে। গরুরহাটসহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমেও প্রচার হয়ে আসছে এ জেলার লালনকৃত বিশাল আকৃতির ষাঁড়গুলি। বিগত কয়েক বছরের ন্যায় এবাও চমক নিয়ে আসার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন সাটুরিয়া উপজেলায় সাহেব নামের বিশাল আকৃতির এ ষাঁড়টি। সম্পুর্ণ দেশীয় পদ্বীতে ৪ বছর ধরে লালন পালন করে আসছেন। 

সাহেব নামে এ আলোচিত ষাঁড়টি  লম্বায় ৯ ফুট ১০ ইঞ্চি, পেটের ভেড় ৯ ফুট ৪ ইঞ্চি এবং উচ্চতা ৬ ফুট। এর দাত রয়েছে ৬টি।

প্রতিদিন শত শত মানুষ এক নজরে দেখার জন্য আসছেন নোমাজ আলীর বাড়িতে। কেউ সেলফিসহ ছবি তোলে আপলোড দিচ্ছেন ফেসবুকে।

সাহেব’ নামের ষাঁড়টি সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে লালনপালন করেছেন। কোনো সৌখিন ক্রেতা এ ষাঁড়টি উপযুক্ত দাম দিয়ে কিনলে খামারিরা উৎসাহিত হবে। ফেসবুক-ইউটিউবে প্রচারের কারণে সাহেব ‘ভাইরাল’ হয়েছে ।

৮-১০ বছর ধরে কুরবানির পশুর হাটে সাটুরিয়া উপজেলার লালনকৃত বিশাল আকৃতির ষাঁড়গুলো ভাইরাল হয়ে আসছে। এবারো আসন্ন কুরবানির পশুর হাটে চমক দেখাবে সাহেব নামের বিশাল আকৃতির এ ষাঁড়টি।

মানিকগঞ্জ জেলা প্রাণী সম্পদ অফিস থেকে  জানা যায়, জেলার সাতটি উপজেলাতেই নিরাপদ স্বাস্থ্যসম্মতভাবে গবাদি পশু মোটাতাজা করা হয়ে থাকে। খামারিদের সঙ্গে সবসময় যোগাযোগ রাখাসহ সব ধরনের পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।

আসন্ন কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে এ বছর মানিকগঞ্জে ১০ হাজার ৯২৬টি খামারে ৫৫ হাজার ৮৮৮টি গবাদিপশু মোটাতাজা করা হচ্ছে। এতে ২৭ হাজার ৫৫৪টি ষাঁড়, ৯২৮টি বলদ, ১৩টি মহিষ, ১৬ হাজার ২৮৬টি ছাগল এবং ২ হাজার ৮৩৯টি ভেড়া রয়েছে।

মোঃ- আরিফুর রহমান অরি/মাহা